Skip to main content

সুলতানা কামালের মতে, আমাদের সমাজ ব্যবস্থাটি সবলের পক্ষে চলে যাচ্ছে, এর ফলে অপরাধ বাড়ছে

মানবাধিকার কর্মী সুলতানা কামাল বলেছেন, আমাদের সমাজ ব্যবস্থাটি এমন হয়ে গেছে যে, সব কিছু চলে যাচ্ছে সবলদের পক্ষে। সময় টেলিভিশনের ‘সম্পাদকীয়’ টকশোতে তিনি বলেন, আমাদের সমাজটি ভীষণভাবে সুবিধাবাদি হয়ে গেছে। সেটা অর্থনৈতিক, রাজনৈতিক এবং সামাজিক সুবিধাভোগী যারা রয়েছে তাদের হাতে সমাজটি চলে গেছে। তারা যদি অপরাধ করে সেই অপরাধের কোনো বিচার হয় না, তাদের অপরাধের যেন কোনো গুনাহ হয় না। যার কারণে সমাজে অপরাধ প্রশ্রয় পেতে থাকে এবং বাড়তে থাকে। 

সুলতানা কামাল বলেন, আমরা যতই নারী সমাজ নিয়ে কথা বলি এবং যারা নৃশংসতার শিকার হচ্ছে, এই ব্যাপারে আমরা মানবাধিকার কর্মীরা কথা বলার চেষ্টা করি কিন্তু একটি পর্যায়ে আমাদেরও সীমাবদ্ধ হতে হয়। আমরা কথা বলতে পারি, বিচার চাইতে পারি কিন্তু বিচার করতে তো পারি না। তারা যদি সেই বিষয়টিকে গুরুত্ব না দেয় তাহলে অপরাধের প্রবণতা তো বাড়তেই থাকবে। যারা শিশু অপরাধের সাথে জড়িত তারা রাজনৈতিকভাবে কিভাবে প্রশ্রয়প্রাপ্ত হয়ে যায় তা অনেক সময় দেখা যায়। আজ বলা হচ্ছে, ৯৭ ভাগ অপরাধের বিচার বা সাজা হয়নি। যার ফলে যারা অপরাধ করছে তারা ভাবছে এই অপরাধ করে আমরা তো পার পেয়েই যাচ্ছি।  ঘুরে-ফিরে সেই একই কথা শিশুরা এতো অসহায়, তারা নিজেকে বাঁচাতে এতো অসক্ষম যে সেখানে  অপরাধীরা তার কাজটি করে ফেলতে পারছে। সেটা ব্যক্তিগত রাগের জন্যই হোক, সামাজিক কোনো প্রতিরোধ কিংবা প্রতিহিংসার জন্য হোক, পারিবারিক কোনো কলহের জন্য হোক কিংবা রাজনৈতিক কোনো বিষয় হোক সব জায়গায় শিশুকে টার্গেট করা হয়। 

শিশুকে ভুলানো অনেক সহজ হয়ে যায় বলে উল্লেখ করে সুলতানা কামাল বলেন, অত্যাচারীর নিপীড়নে শিশুর তো কোনো শক্তিই নেই সে জায়গাটিকে প্রতিরোধ করা বা প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে দাঁড়ানো। কারণ তার বুদ্ধি, বয়স, বিবেচনা এবং শারীরিক শক্তি সব মিলিয়ে সবলের বিরুদ্ধে কোনোভাবেই দাঁড়ানো সুযোগই পায় না শিশু। 

তিনি বলেন, বড় বড় জঙ্গি ঘটনাগুলো যদি বাদ দিয়ে দেখা হয়, তাহলে সাধারণভাবে সমাজে যে ঘটনাগুলো দেখা যায় সেখানে মুক্তিপণের জন্য শিশুকেই অপহরণ করা হয়। কারণ বড়দের অপহরণ করলে কিছুটা বাধার সম্মুখীন হতে হবে এবং পরবর্তীতে জবাবদিহিতা করতে হয়। কিন্তু একজন শিশুকে যদি অপহরণ করে হত্যা করা হয় তারপর আর আইনি প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে তেমন কোনো প্রতিকার আশা ছাড়া আর কোনো প্রতিরোধের সম্মুখীনের দাঁড়াতে হয় না অপরাধীকে। 
 

অন্যান্য সংবাদ