Skip to main content

সিলেটের নবনির্মিত কেন্দ্রীয় কারাগারে বন্দী স্থানান্তর, বন্ধ হচ্ছে না ২৩০ বছরের পুরনো কারাগারটিও

সিলেটের নবনির্মিত কেন্দ্রীয় কারাগারে পুরনো কারাগারের বন্দীদের স্থানান্তর করা হয়েছে। নতুন কারাগার চালু হলেও ২৩০ বছরের পুরনো কারাগারটি বন্ধ হচ্ছে না বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা। শুক্রবার কড়া নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে ২ হাজার ৩০০ বন্দিকে স্থানান্তর করা হয়। সূত্র: ইনডিপেন্ডেন্ট টিভি।

সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগার চালু হয় ১৭৮৯ সালে। তৎকালীন কালেক্টর জন উইলিয়াম ২৪ দশমিক ৬৭ একর জমির উপর সিলেট কারাগার নির্মাণ করেন। এর ধারণক্ষমতা ১২ শ’ দশ জন। কিন্তু বন্দীর সংখ্যা অনেক বেশি। জায়গা সংকুলান না হওয়ায় ২০১১ সালে নগরীর বাদাঘাটে নতুন কারাগারের নির্মাণ কাজ শুরু হয়। 

২০১৮ সালের ১ নভেম্বর নবনির্মিত কারাগারটি ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। নবনির্মিত কারাগারে বন্দি স্থানান্তরিত করা হয় শুক্রবার। কড়া নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে ১০টি প্রিজন ভ্যানের মাধ্যমে নতুন কারাগারে নেওয়া হয়। 

সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগারের সিনিয়র জেল সুপার আব্দুল জলিল বলেন, ২ হাজার ৩০০ বন্দীর সবাইকে আমরা সুন্দরভাবে স্থানান্তর করতে সক্ষম হয়েছি। কাজটি করতে পুলিশ, র‌্যাব, ফায়ার সার্ভিস, মেডিকেল টিম, এনএসআই, ডিজিএফআইসহ সকল গোয়েন্দা সংস্থার সহায়তা ছিলো।

প্রায় ৩০ একর জায়গার উপর নির্মিত নতুন কারাগারে রয়েছে সুয়ারেজ ট্রিটম্যান্ট প্লান্ট, ১০০ শয্যার হাসপাতাল, স্কুল ও লাইব্রেরী ভবন। কর্মকর্তা- কর্মচারীদের জন্য রয়েছে ১৩০টি ফ্ল্যাট।

সিলেটের ডিআইজি প্রিজন ফজলুল ইসলাম বলেন, নতুন কারাগারে বন্দীদের একমোডেশন সমস্যা থাকছে না। বন্দী অনুযায়ী একমোডেশনের সুবিধ প্রায় সমান। যার ফলে বন্দীরা স্বাচ্ছন্দে থাকতে পারবে। তাছাড়া বিনোদনের সমস্ত সুবিধা আছে।