Skip to main content

প্রধানমন্ত্রী পরিবারের সদস্যদের নামে ভুয়া ফেসবুক আইডি খুলে অপপ্রচার

শুক্রবার (১১ জানুয়ারি) দলের পক্ষ থেকে পাঠানো এক প্রেসবিজ্ঞপ্তিতে এ অভিযোগ করা হয়। আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক আবদুস সোবহান গোলাপ স্বাক্ষরিত ওই প্রেসবিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ ও শেখ রেহানার পুত্র সিআরআইয়ের ট্রাস্টি রাদওয়ান মুজিব সিদ্দিকের ফেসবুক আইডি অফিসিয়ালি চালু আছে। তবে এর বাইরে বঙ্গবন্ধুর দুই কন্যাসহ পরিবারের কারোরই এখনো কোনো ফেসবুক পেইজ চালু হয়নি। তাদের নামে পরিচালিত পেইজগুলোকে 'আনঅফিসিয়াল' ঘোষণা করা না হলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার কথাও উল্লেখ করা হয় প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে।

প্রেস বিজ্ঞপ্তিটি নিম্নরূপ:
‘গত কিছুদিন ধরেই আমরা অত্যন্ত উদ্বেগের সাথে লক্ষ্য করছি যে- বঙ্গবন্ধুর জ্যেষ্ঠ কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা, কনিষ্ঠ কন্যা শেখ রেহানা, বঙ্গবন্ধুর দৌহিত্র রাদওয়ান মুজিব সিদ্দিক এবং বঙ্গবন্ধুর দৌহিত্রী সায়মা ওয়াজেদ হোসেন পুতুলের নামে কিছু 'ফেইক ফেসবুক পেইজ' বাংলাদেশ ও বাংলাদেশের বাইরে থেকে পরিচালিত হচ্ছে এবং সেই পেইজগুলো থেকে নানা রকম মিথ্যা সংবাদ প্রচার করা হচ্ছে।

বঙ্গবন্ধুর দৌহিত্র, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ এর একটি ভেরিফাইড ফেসবুক পেইজ, শেখ রেহানা'র পুত্র বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের গবেষণা প্রতিষ্ঠান সেন্টার ফর রিসার্চ অ্যান্ড ইনফরমেশন (সিআরআই) এর ট্রাস্টি রাদওয়ান মুজিব সিদ্দিক এর একটি ফেসবুক আইডি অফিশিয়ালি চালু আছে - যা তারা নিজেরাই তত্ত্বাবধান করে থাকেন।

একই সাথে জানানো যাচ্ছে যে, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের বিভিন্ন প্ল্যাটফর্মে উপমহাদেশের সর্ববৃহৎ রাজনৈতিক দল বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের উপস্থিতি রয়েছে। ফেসবুক, টুইটার এবং ইউটিউবে দলটির অফিশিয়াল পেজ ও চ্যানেল রয়েছে। এগুলো হলো:
ফেসবুক: https://www.facebook.com/awamileague.1949/
টুইটার: https://twitter.com/albd1971
ইউটিউব: https://www.youtube.com/user/myalbd

জনসাধারণ ও সাংবাদিকদের অবগতির জন্য আমরা আবারো জানাচ্ছি যে, বঙ্গবন্ধুর কন্যাদ্বয় শেখ হাসিনা, শেখ রেহানা ও শেখ হাসিনা'র কন্যা সায়মা ওয়াজেদ হোসেন পুতুল এমনকি তাদের পরিবারের কারোই এখনও অফিশিয়ালি কোন ফেসবুক পেইজ চালু হয় নি। এরকম পেইজগুলোর অ্যাডমিনদেরকে আমরা অনুরোধ করবো পেইজগুলোকে 'আনঅফিশিয়াল' হিসেবে ঘোষণা দিয়ে আমাদেরকে সহযোগিতা করবেন - অন্যথায় অতিসত্বর আইনগত ব্যবস্থা নিতে বাধ্য হবে বাংলাদেশ আওয়ামী।’ (সূত্র : সময় টিভি)