Skip to main content

আওয়মী লীগ সরকারের অনেক মন্ত্রী গণফোরামের প্রডাক্ট : ড. কামাল হোসেন 

মঈন মোশাররফ : গণফোরামের সভাপতি ড. কমাল হোসেন বলেছেন, গণফোরামকে অনেকে রাজনীতির প্লাটফর্ম হিসেবে ব্যবহার করেছেন। আবুল মাল আব্দুল মুহিত ২ বছর গণফোরামের সেক্রেটারি জেনারেল ছিলেন। শিক্ষা মন্ত্রী গণফোরামের অফিস সেক্রেটারি ছিলেন। গণফোরামে রাজনীতিকরে এখন তারা আওয়ামী লীগের মন্ত্রী হয়েছেন। বৃহস্পতিবার বিবিসি বাংলার এক বিশেষ সাক্ষাতকারে তিনি আরো বলেন, আওয়মী লীগ সরকারের আনেক মন্ত্রী গণফোরামের প্রডাক্ট।

তিনি বলেন, আমি যতদিন জীবিত আছি বঙ্গবন্ধুর সাক্ষরিত সংবিধান কার্যকর করার জন্য কাজ করে যাবো। এখন মূল কাজ সংগঠন করা। সংগঠনের সদস্য বৃদ্ধি করা। আমি ২৫ বছর দায়িত্ব পালন করেছি, আমার বয়স হয়েছে। এখন পার্টির অ্যক্টিং সেক্রেটারিদের দায়িত্ব দিয়েছি। সংগঠনকে সামনে এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে। এই সংগঠন থেকে অনেকে মন্ত্রী হয়েছে। আমি এটাকে খারাপ বলবো না। কিন্তু  দল ছেড়ে গেলে তার অভাব পূরণ করতে সময় লাগে । এখনও আনেক ভালো লোক আছে তারা দল ছেড়ে যাবে না। সংগঠনকে শক্তিশালী করতে হলে তরুণদের এগিয়ে আসতে হবে।

তিনি বলেন, জনগণ ক্ষমতার মালিক। তাদের সম্মতি ছাড়া দেশকে শাসন করার ক্ষমতা কারউ নেই। প্রশ্নবিদ্ধ নির্বাচন হলেই সংকটের সৃষ্টি হয়। প্রশ্নবিদ্ধ নির্বাচনের সংসদ কতটা গ্রহণযোগ্য? ৩০০ আসনের মধ্যে ২৯০ সরকারি দলের এটি কি বিশ্বাসযোগ্য। গণফোরামের যারা নির্বাচিত হয়েছেন, তাদের সংসদে যাওয়ার অধিকার আছে মন্তব্য করেছিলাম। কিন্তু এই বিতর্কিত নির্বাচনের ফলাফল নিয়ে আমরা আদালতে গিয়েছি। আমাদের চিন্তাভাবনা করে সিদ্ধান্ত নিতে হবে।
ড. কামাল আরো বলেন, ঐক্যফ্রন্টকে সামনে এগিয়ে নিতে তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে আসতে হবে। সবার কাছে গিয়ে বলতে হবে জনগণ ক্ষমতার মালিক। জাতীয় ঐক্য আমাদের লক্ষ্য হওয়া উচিত। সংবিধানের মূল্য সবাইকে দিতে হবে। যারা আজকে শপথ নিয়েছে তাদেরকে বুঝতে হবে জনগণ সকল ক্ষমতার উৎস। 

অন্যান্য সংবাদ